1. sumondomar2021@gmail.com : sumon islam : sumon islam
  2. info@www.newsibangla.com : news :
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৬:৫৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
ডোমার উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত সরকার ফারহানা আখতার সুমি চট্টগ্রামে র‌্যাবের পাতা ফাঁদে আঁটকে গেল ৪ চাঁদাবাজ নাজাত যেন মেলে নালিতাবাড়ীতে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের গণসংযোগ এক বছরের মাথায় চিলাহাটি এক্সপ্রেস কোচ লক্কড়ঝক্কড় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক/কর্মচারী যোগদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত গাজীপুরের শ্রীপুরে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চিলাহাটিতে ভোক্তা অধিকারের অভিযান, ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা শেকড়ের সন্ধানে শীর্ষক সুরেন্দ্রনাথ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে সপ্তম মিলনমেলা ফুলবাড়ীতে জাতীয় ভোটার দিবস পালিত

গাজীপুরে ভুল চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

সাবরিনা জাহান,গাজীপুর জেলা
  • প্রকাশিত: বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৮৬ বার পড়া হয়েছে

সাবরিনা জাহান,গাজীপুর জেলা প্রতিনিধি :
জন্মের ৫৬ ঘণ্টার মধ্যেই ডাক্তারের ভুল চিকিৎসা ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের গাফলতিতে এক নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গাজীপুর মহানগরীর শিববাড়ির একটি গলিতে গড়ে তোলা এক প্রাইভেট হাসপাতালে মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) এ ঘটনা ঘটে।

নবজাতকের বাবা আনিসুর রহমান জানান, তার স্ত্রী জমিলা বেগমের প্রসবের সম্ভাব্য নির্ধারিত তারিখ ছিল ১০ ডিসেম্বর। এরই মধ্যে শনিবার রাতে জমিলা অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত স্থানীয় শিববাড়ি মোড়ে অবস্থিত গাজীপুর আধুনিক হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আনা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তমা কর্মকার শিববাড়ির একটি গলিতে অবস্থিত এসকিউআর মেডিকেল সার্ভিসেস অ্যান্ড হসপিটাল লিমিটেড নামের হাসপাতালে নিয়ে দ্রুত সিজার করেন। সিজারে জমিলা ছেলে সন্তানের জন্ম দেন।আনিসুর রহমান আরও জানান, অস্ত্রোপচার শেষে ডা. তমা কর্মকার ব্যবস্থাপত্র লিখে চলে যান। এরপর ডা. তমা আর হাসপাতালে আসেননি, নবজাতকেরও কোনো খবর নেননি। নবজাতক বা শিশুরোগে অভিজ্ঞ কোনো ডাক্তারও শিশুটির খবর নেননি। এরই মধ্যে সোমবার রাতে নবজাতক প্রচণ্ড কান্না শুরু করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও স্টাফদের জানানো হয়। কিন্তু তারা কোনো ব্যবস্থা নেননি। মঙ্গলবার সকালে শিশুটির শ্বাসকষ্ট শুরু হলে ডিউটি ডাক্তার দ্রুত শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। সেখানে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।
রাজবাড়ি রোডস্থ শিববাড়ির একটি গলিতে নির্মাণাধীন ভবনের প্রথম ও দ্বিতীয় তলায় কথিত ওই হাসপাতালে গিয়ে একজন ডাক্তার, একজন নার্স ও একজন নার্স কাম ম্যানেজার ছাড়া আর কাউকে পাওয়া যায়নি।বছর সদ্য ইন্টার্নি সম্পন্ন করা ওই ডাক্তার আমিনুল ইসলাম বলেন, আমি সকালে ডিউটিতে এসে ওই নবজাতকের শ্বাসকষ্ট দেখে তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করি। সেখানে নেওয়ার পর শিশুটি মারা যায়। আমাদের এখানে তার মৃত্যু হয়নি।

হাসপাতালটির অনুমোদন আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, হাসপাতালের মালিক বলতে পারবেন। তবে এটি ১০ শয্যার হাসপাতাল বলে তার দাবি।তবে সিভিল সার্জনের অফিস থেকে সংগৃহীত বৈধ ও অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নামের তালিকার কোনোটিতেই ওই হাসপাতালের নাম পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে জানতে হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ আজমি তুহিনের মোবাইল নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও রিসিভ করেননি।

প্রসূতির অস্ত্রোপচারকারী চিকিৎসক তমা কর্মকারের মোবাইল নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও তিনিও রিসিভ করেননি। ওই প্রসূতিকে দেওয়া তার চিকিৎসার ব্যবস্থাপত্রে দেখা যায়, ডা. তমা গাইনি চিকিৎসায় ট্রেনিংরত।

এ বিষয়ে জিএমপি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়াউল ইসলাম বলেন, কথিত ওই হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার মতো পরিবেশ ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নেই। এসব হাসপাতালের বিরুদ্ধে সিভিল সার্জনের ব্যবস্থা নেওয়ার কথা। নবজাতক মৃত্যুর ঘটনায় অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।এবিষয়ে গাজীপুরের সিভিল সার্জন ডা. খায়রুজ্জামান বলেন, আমরা অফিসিয়ালভাবে গিয়ে বলতে পারবো এটি অবৈধ হাসপাতাল, আপনারা বন্ধ করুন। তারা বন্ধ করলো, আমরা চলে আসার পর আবার চালু করলো। আমরা তো আর নিজেরা বন্ধ বা তালা দিতে পারবো না। এ জন্য আমরা প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়ে গোটা জেলায় প্রায় দুশ অবৈধ হাসপাতাল ও ক্লিনিকের তালিকা তৈরি করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পাঠিয়েছি। জেলা প্রশাসন এটি দেখবে। যদি আমাদের সহযোগিতা লাগে আমরাও থাকবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং