1. sumondomar2021@gmail.com : sumon islam : sumon islam
  2. info@www.newsibangla.com : news :
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
ডোমার উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত সরকার ফারহানা আখতার সুমি চট্টগ্রামে র‌্যাবের পাতা ফাঁদে আঁটকে গেল ৪ চাঁদাবাজ নাজাত যেন মেলে নালিতাবাড়ীতে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের গণসংযোগ এক বছরের মাথায় চিলাহাটি এক্সপ্রেস কোচ লক্কড়ঝক্কড় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক/কর্মচারী যোগদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত গাজীপুরের শ্রীপুরে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চিলাহাটিতে ভোক্তা অধিকারের অভিযান, ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা শেকড়ের সন্ধানে শীর্ষক সুরেন্দ্রনাথ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে সপ্তম মিলনমেলা ফুলবাড়ীতে জাতীয় ভোটার দিবস পালিত

লালমনিরহাটের তাপমাত্রা নেমেছে ১১ ডিগ্রির নিচে

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ২৮ বার পড়া হয়েছে

আগামীতে তাপমাত্রা আরও কমে এই জেলার উপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে বলে শঙ্কা আবহাওয়া অফিসের।
লালমনিরহাট জেলা হাতিবান্ধা জেঁকে বসেছে শীত। হিমাঙ্কের পারদ নেমেছে ১০ দশমিক ৮ ডিগ্রিতে। ফলে শীতের দাপটে কাবু হয়ে পড়েছে এ অঞ্চলের মানুষজন।

ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন হয়ে আছে গোটা জনপদ। দুপুর পর্যন্ত দেখা মিলছে না সূর্যের। এ অবস্থায় সবচেয়ে দুর্ভোগে পড়েছেন শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া মানুষ। কুয়াশা ও ঠাণ্ডার কারণে কাজে বের হতে পারছেন না তারা।

হাতিবান্ধার কৃষি আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন গত ২ সপ্তাহ ধরে এ অঞ্চলের তাপমাত্রা ১১ ডিগ্রি থেকে ১৮ সেলসিয়াসে ডিগ্রিতে উঠানামা করছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৬টায় জেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১০ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

“যা আগামীতে আরও কমে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে এই জেলার উপর দিয়ে।”

এদিকে উত্তরীয় হিমেল হাওয়া ও কনকনে ঠাণ্ডায় গরম কাপড়ের অভাবে কষ্টে পড়েছেন জেলার নদ-নদী তীরবর্তী চরের বাসিন্দারা।

সদরের পাঁচগাছী ইউনিয়নের দিনমজুর নামদেল আলী বলেন, “কয়েকদিন থেকে খুব শীত। মাঠে কাজ করতে সমস্যা হয়। এখনো কেউ আমাক কম্বল দেয় নাই। কম্বলের খুব দরকার বর্তমানে।”

কনকনে শীতে মানুষের পাশাপাশি কষ্ট পাচ্ছে প্রাণিকূলও।
৪ নং টংভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব সেলিম হোসেন বলেন, “আমার ইউনিয়নের বেশির ভাগ এলাকার মানুষ জন বেশি কৃষক তারা ঘাটে কাজ করতে পরছে না। সবচেয়ে শীত অনুভূত হয় এখানে। সরকারিভাবে এখনো কোনো শীত বস্ত্র পাইনি। পেলেই স্থানীয়দের মধ্যে বিতরণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং