1. info@www.newsibangla.com : news :
ইসলামই একমাত্র মনোনীত দ্বীন - News i Bangla
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০৯:৪৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আতাউর রহমান মিল্টন বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত ডোমার উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত সরকার ফারহানা আখতার সুমি চট্টগ্রামে র‌্যাবের পাতা ফাঁদে আঁটকে গেল ৪ চাঁদাবাজ নাজাত যেন মেলে নালিতাবাড়ীতে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের গণসংযোগ এক বছরের মাথায় চিলাহাটি এক্সপ্রেস কোচ লক্কড়ঝক্কড় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক/কর্মচারী যোগদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত গাজীপুরের শ্রীপুরে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চিলাহাটিতে ভোক্তা অধিকারের অভিযান, ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা শেকড়ের সন্ধানে শীর্ষক সুরেন্দ্রনাথ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে সপ্তম মিলনমেলা

ইসলামই একমাত্র মনোনীত দ্বীন

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৭৫ বার পড়া হয়েছে

সর্বপ্রথম নাবী সাইয়্যেদুনা হযরত আদম আলাইহিস সালাম থেকে শুরু করে সর্বশেষ নাবী সাইয়্যেদুনা হযরত মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পর্যন্ত সকল নাবী-রাসূলের দ্বীন ছিল এক ও অভিন্ন। আর তা হলো- ‘ইসলাম’। নিম্নের সহিহ হাদিসটিই তার প্রমাণ-

حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ سِنَانٍ، حَدَّثَنَا فُلَيْحُ بْنُ سُلَيْمَانَ، حَدَّثَنَا هِلاَلُ بْنُ عَلِيٍّ، عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ أَبِي عَمْرَةَ، عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏”‏ أَنَا أَوْلَى النَّاسِتٍ، أُ بِعِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ فِي الدُّنْيَا وَالآخِرَةِ، وَالأَنْبِيَاءُ إِخْوَةٌ لِعَلاَّمَّهَاتُهُمْ شَتَّى، وَدِينُهُمْ وَاحِدٌ ‏”‏‏

হযরত আবূ হুরায়রা (রদ্বিয়াল্লাহু আনহু) থেকে বর্ণিত:তিনি বলেন,আল্লাহর রাসূল (সল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন,আমি দুনিয়া ও আখিরাতে ঈসা ইব্‌নু মারিয়ামের ঘনিষ্ঠতম। নাবী‎গণ একে অন্যের বৈমাত্রেয় ভাই।তাঁদের মা ভিন্ন ভিন্ন কিন্তু দ্বীন এক-অভিন্ন।

(সহিহ বুখারি, হাদিস নং ৩৪৪৩ হাদিসের মান: সহিহ)

সর্বকালে সর্বযুগেই মহান আল্লাহর নিকট একমাত্র মনোনীত দ্বীন ছিল ইসলাম। নিম্নের আয়াতাংশটিই তার প্রমাণ-

إِنَّ الدّينَ عِندَ اللَّهِ الإِسلامُ

অনুবাদ: নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট একমাত্র দ্বীন হচ্ছে ইসলাম।

(সূরা আলে ইমরান, সূরা নং ০৩,আয়াতাংশ-১৯)

আর মানব জাতির জন্য ইসলাম ব্যতীত অন্য কোন দ্বীন বা জীবন ব্যবস্থা আল্লাহর নিকট কস্মিনকালেও গ্রহন যোগ্য নয়। এ মর্মে পবিত্র কুরআনে স্বয়ং মহান আল্লাহ ঘোষণা করেন-

وَمَن يَبتَغِ غَيرَ الإِسلامِ دينًا فَلَن يُقبَلَ مِنهُ وَهُوَ فِي الآخِرَةِ مِنَ الخاسِرينَ

অনুবাদ: আর যে ইসলাম ছাড়া অন্য কোন দ্বীন চায় তবে তার কাছ থেকে তা কখনো গ্রহণ করা হবে না এবং সে আখিরাতে ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে।

(সূরা আলে ইমরান, সূরা নং ০৩,আয়াত ৮৫)

শরিয়তে আদম দ্বারা ইসলামের সূচনা হলেও শরিয়তে মুহাম্মদী দ্বারাই তা পরিপূর্ণতা লাভ করেছে এবং ইসলামেই মানব জাতির জন্য একমাত্র ও চুড়ান্ত দ্বীন হিসেবে সাব্যস্ত করা হয়ছে। এমর্মে মহান আল্লাহর ঘোষণা হলো-

اليَومَ أَكمَلتُ لَكُم دينَكُم وَأَتمَمتُ عَلَيكُم نِعمَتي وَرَضيتُ لَكُمُ الإِسلامَ دينًا
অনুবাদ: আজ আমি তোমাদের জন্য তোমাদের দ্বীনকে পূর্ণ করলাম এবং তোমাদের উপর আমার নি’আমত সম্পূর্ণ করলাম এবং তোমাদের জন্য দীন হিসেবে পছন্দ করলাম ইসলামকে।

(সূরা মায়িদাহ, সূরা নং ০৫,আয়াতাংশ ০৩)

উপরোক্ত বক্তব্যগুলো নি:সন্দেহে সত্য। এর বিপরীত বক্তব্য প্রদান করা মহান আল্লাহর ওপর মিথ্যা আরোপের নামান্তর বৈ আর কিছুই নয়। পবিত্র কুরআনের ঘোষণা হলো-

وَمَن أَظلَمُ مِمَّنِ افتَرى عَلَى اللَّهِ الكَذِبَ وَهُوَ يُدعى إِلَى الإِسلامِ وَاللَّهُ لا يَهدِي القَومَ الظّالِمينَ
অনুবাদ: সেই ব্যক্তির চেয়ে অধিক যালিম আর কে?
যে আল্লাহ সম্পর্কে মিথ্যা রচনা করে, অথচ তাকে ইসলামের দিকে আহবান করা হয়। আর আল্লাহ যালিম সম্প্রদায়কে হিদায়াত করেন না।

(সূরা আস সফ, সূরা নং ৬১,আয়াত ০৭)

তবে বর্তমানে ইসলামের নামে বহু বিপথগামী দল উপদলেরও সৃষ্টি হয়েছে। এসবে মধ্যে ইসলামের শতভাগ সঠিক রুপরেখা হলো “আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত”। আর আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতই যে একমাত্র নাজাত প্রাপ্ত দল, এ বিষয়ে স্বয়ং রাসুলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পবিত্র বাণী মওজুদ রয়েছে। নিম্নোক্ত সহিহ হাদিসটি লক্ষ্য করুন –

حَدَّثَنَا عَمْرُو بْنُ عُثْمَانَ بْنِ سَعِيدِ بْنِ كَثِيرِ بْنِ دِينَارٍ الْحِمْصِيُّ، حَدَّثَنَا عَبَّادُ بْنُ يُوسُفَ، حَدَّثَنَا صَفْوَانُ بْنُ عَمْرٍو، عَنْ رَاشِدِ بْنِ سَعْدٍ، عَنْ عَوْفِ بْنِ مَالِكٍ، قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ ‏”‏ افْتَرَقَتِ الْيَهُودُ عَلَى إِحْدَى وَسَبْعِينَ فِرْقَةً فَوَاحِدَةٌ فِي الْجَنَّةِ وَسَبْعُونَ فِي النَّارِ وَافْتَرَقَتِ النَّصَارَى عَلَى ثِنْتَيْنِ وَسَبْعِينَ فِرْقَةً فَإِحْدَى وَسَبْعُونَ فِي النَّارِ وَوَاحِدَةٌ فِي الْجَنَّةِ وَالَّذِي نَفْسُ مُحَمَّدٍ بِيَدِهِ لَتَفْتَرِقَنَّ أُمَّتِي عَلَى ثَلاَثٍ وَسَبْعِينَ فِرْقَةً فَوَاحِدَةٌ فِي الْجَنَّةِ وَثِنْتَانِ وَسَبْعُونَ فِي النَّارِ ‏”‏ ‏.‏ قِيلَ يَا رَسُولَ اللَّهِ مَنْ هُمْ قَالَ ‏”‏ الْجَمَاعَةُ ‏”‏ ‏.‏

হযরত আওফ বিন মালিক (রদ্বিয়াল্লাহু আনহু) থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন,রাসূলুল্লাহ (সল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ ইহূদী জাতি একাত্তর ফেরকায় বিভক্ত হয়েছে। তার মধ্যে একটি ফেরকা জান্নাতী এবং অবশিষ্ট সত্তর ফেরকা জাহান্নামী। খৃস্টানরা বাহাত্তর ফেরকায় বিভক্ত হয়েছে। তার মধ্যে একাত্তর ফেরকা জাহান্নামী এবং একটি ফেরকা জান্নাতী। সেই মহান সত্তার শপথ যাঁর হাতে মুহাম্মাদের প্রাণ! অবশ্যই আমার উম্মাত তিয়াত্তর ফেরকায় বিভক্ত হবে। তার মধ্যে একটি মাত্র ফেরকা হবে জান্নাতী এবং অবশিষ্ট বাহাত্তরটি হবে জাহান্নামী। বলা হলো, হে আল্লাহর রাসূল!কোন (দল) ফেরকাটি জান্নাতী। তিনি বলেনঃ জামাআত (একতাবদ্ধ দলটি)।

(সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস নং ৩৯৯২, মান: সহিহ)

এখানে ‘জামাআত’ বলতে ‘আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত’কেই বোঝানো হয়েছে। আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের এই পরিভাষা বহু পুরাতন। অতীতের জগৎ বিখ্যাত সাহাবা, মুহাদ্দিস ও মুফাসসিরগণ এই নামটি ব্যবহার করতেন। নিম্নে ইবনে কাসিরের অনুবাদকৃত তাফসীরে ইবনে কাসীরের উক্তিটি লক্ষ্য করুন। ইবনে কাসির পবিত্র কুরআনের ব্যাখ্যায় এক জায়গায় সাহাবি হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (رضي الله عنه)‘র উক্তি বর্ণনা করেছেন। যার ভাষ্য কিছুটা এরকম-

وَتَبْيَضُّ وُجُوهُ أَهْلِ السُّنَّةِ وَالْجَمَاعَةِ

অনুবাদ:কিয়ামতের দিন যাদের মুখ উজ্জল হবে তারা হল-“আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত”-এর অনুসারী।

(ইবনে কাসির,তাফসীরে ইবনে কাসীর,২/৭৯পৃষ্ঠা, দারুল কুতুব ইলমিয়্যাহ, বৈরুত,লেবানন, প্রকাশ- ১৪১৯হিজরি)

বি:দ্র: পবিত্র কুরআনের বিশ্ব বিখ্যাত তাফসির সমূহ এবং বিভিন্ন সহিহ হাদিসের আলোকে আমরা এটা সুনিশ্চিত জানতে পারি যে একমাত্র নাজাত প্রাপ্ত দলটি হলো আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত। আর আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের আদর্শের অনুসারীদের সংক্ষেপে “সুন্নি মুসলিম” বলা হয়।

✍️লেখক:
শেখ খুরশিদ আলম (মানিক) নূরী ।
{কামিল/মাস্টার্স (আত-তাফসির ও আল-হাদিস) এম.এ (ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি) এবং এম.এ (ইসলামিক স্টাডিজ)}

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং