1. sumondomar2021@gmail.com : sumon islam : sumon islam
  2. info@www.newsibangla.com : news :
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৩:৩৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
চিলাহাটিতে খাসি মোটাতাজকরণ বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল পদকে ভূষিত হলেন বরগুনার পুলিশ সুপার মোঃ আবদুস ছালাম নড়াইলের শান্তা সেনের মেডেকেল শিক্ষা জীবন সম্পন্ন করতে দারিদ্র বাবা-মায়ের দুঃশিন্তা রংপুরে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার দায়ে স্বামীর আমৃত্যু কারাদণ্ড শিশু নুসরাতকে শ্বাসরোধে হত্যা করলো সৎ মা আদালতে স্বীকারোক্তি বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলার ঘটনায় মামলা, পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেড় বছর আগে ভেঙেছে ব্রিজ, মেরামতের উদ্যোগ না থাকায় ভোগান্তিতে এলাকাবাসী চকবাজারের যানজটে আটকে থাকতে হবে না নগরবাসীকে : মেয়র প্রার্থী কায়সার তজুমদ্দিনে “মহান শহীদ দিবস” ও “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” পালিত হয়েছে হাতীবান্ধায় মাদকসহ জলঢাকা পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আটক

বিরামপুরে তীব্রশীতে বেড়েছে গরম কাপড়ের বেচাকেনা

ইব্রাহীম মিঞা
  • প্রকাশিত: শনিবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ১৯ বার পড়া হয়েছে

ইব্রাহীম মিঞা, বিরামপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বিরামপুরে বেড়েছে গরম কাপড়ের বেচাকেনা।কয়েক দিনের শীতের তীব্রতায় বিরামপুরে জমে উঠেছে গরম কাপড়ের ব্যবসা। ফুটপাত থেকে শুরু করে অভিজাত শপিংমলে শীতের কাপড়ের বেচাকেনা বেড়েছে। পাশাপাশি শহরের কাপড়ের পাইকারি বাজারগুলোও দু’সপ্তাহ ধরে জমজমাট।

শনিবার (১৩ জানুয়ারি) বিরামপুর শহরের ব্যবসায়ীরা জানান, এ উপজেলায় ১১০ টি মার্কেটের প্রায় ৫০ শতাংশ দোকানে শীতের কাপড় তোলা হয়েছে। সে হিসাবে পাইকারি ও খুচরা দোকান যদি দৈনিক ১০ হাজার টাকার বিক্রিও করে,মাসে এ পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় কোটি টাকার বেশি। এছাড়াও বিরামপুর উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে তাইওয়ান, কোরিয়া, জাপান প্রভৃতি থেকে নিয়ে আসা হয় পুরাতন কাপড়ের গাঁট। মূলত নিয়ম অনুযায়ী নিম্ন আয়ের মানুষদের টার্গেট করে এসব কাপড় আনা হয়।

হাটবাজারে সস্তা দামে গরম কাপড় কিনতে নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষরা ফুটপাতের দোকানে ভিড় করছেন। প্রতিবছর শীতের আগমনকে ঘিরে বিরামপুর হাটে মৌসুমি হকারদের আনাগোনা বেড়ে যায়। বাড়তি রোজগারের আশায় এসব হকার ফুটপাতের পাশাপাশি বিরামপুর উপজেলার অলিগলিতেও ফেরি করে। কয়েক বছর প্রত্যাশিত শীত না পড়ায় তেমন বেচাকেনা হয়নি। অনেকে শীতের কাপড় কিনে মজুত করলেও তা বিক্রি করতে পারেননি। এবছরও শুরুতে শীতের দেখা মেলেনি। তখন পসরা সাজিয়ে বসলেও ক্রেতা পাওয়া যায়নি। তবে গত কয়েকদিন শীত বাড়ায় ক্রেতার সংখ্যা বেড়েছে। ফুটপাতে দামও কিছুটা নাগালের মধ্যে থাকায় স্বাচ্ছন্দ্যে কেনাকাটা করছেন লোকজন। শীত যত বাড়বে হাটবাজারসহ ফুটপাতের বাজার তত বেশি গরম হবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।

তীব্র শীত অনুভূত হওয়ার পর থেকে ফুটপাতে ছোটদের বিভিন্ন সাইজের গরম কাপড়, বয়স্কদের সোয়েটার, কোট, ব্লেজার, মাফলারসহ বিভিন্ন আইটেমের শীতের কাপড় পাওয়া যাচ্ছে। হকাররা অনেকে ৩০ টাকা, ৫০ টাকা, ১০০-২০০ টাকা হাঁকডাক করে এসব কাপড় বিক্রি করছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় বিরামপুর পশুহাটের মোড়ে সোয়েটার ও জ্যাকেটের দাম মানভেদে ২০০ থেকে ৮০০ টাকা, ছেলেদের সোয়েটার ১০০ থেকে ৫০০ টাকা, ছেলেদের জ্যাকেট ৩০০ থেকে ৩০০০ টাকা, ছোটদের সোয়েটার ৫০ থেকে ৬০০ টাকা, মাফলার ৪০ থেকে ২০০ টাকা এবং গরম টুপি ৫০ থেকে ২৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।
বিরামপুর পশুহাটের মোড়ে পুরাতন কাপড় দড়িতে এবং ছোট চৌকির উপর সেজে রেখে বিক্রি করা এক ব্যাবসায়ীকে এবার শীতে কেমন বেচাকেনা হচ্ছে এবিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে,সে জানায় তার নাম লালু সে সৈয়দপুর থেকে প্রায় এক যুগের বেশি সময় ধরে এই বিরামপুর হাটে তাইওয়ান, কোরিয়া, জাপান প্রভৃতি থেকে নিয়ে আসা পুরাতন কাপড়ের গাঁট থেকে বাছাই করে ভালো কাপড়গুলো বিক্রি করে আসছেন। তিনি জানান বিরামপুর পশুহাটে কাপড়ের দাম ভালো পাওয়া যায় এবং যাতায়াত ব্যবস্থা সহজ হয়ায় সবমিলিয়ে ভালো আয় হয়ে থাকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং