1. sumondomar2021@gmail.com : sumon islam : sumon islam
  2. info@www.newsibangla.com : news :
সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন

দিনাজপুরে মহাধুমধামে হলো বট-পাকুড়ের বিয়ে

অনলাইন ডেক্স
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৭০ বার পড়া হয়েছে

নয়ন রায়, দিনাজপুর থেকে: দিনাজপুর শহরের বাসুনিয়াপট্টি দুর্গামন্দির প্রাঙ্গণে বছর পাঁচেক আগে এই পাকুড় ও বটগাছ দুটি পাশাপাশি লাগিয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ নামে এক ব্যক্তি
দিলীপ ঘোষ (বরের বাবা) বলেন, পাঁচ বছর আগে দিনাজপুর শহরের ফুলতলা শ্মশান এলাকায় বট-পাকুড় লাগানো অবস্থায় পান তিনি। পরে সেটিকে এনে শহরের চকবাজার চণ্ডীমন্দির চত্বরে একটি টবে লাগান। ২০২০ সালের আগস্ট মাসে বাসুনিয়াপট্টি দুর্গামন্দির চত্বরে স্থাপন করেন।
কনের মা পূর্ণিমা সাহা বলেন, ‘আমি মেয়ে বটেশ্বরীর মা। ছেলে পাকেশ্বরের বাবা-মা আমাদের প্রতিবেশী। উভয়ের মঙ্গল ও কল্যাণের জন্যই এই আয়োজন করেছি। আমরা দুই পরিবার বট-পাকুড়ের বিয়ে দিতে পেরে ভীষণ আনন্দিত।’
বিয়েতে নিমন্ত্রিত অতিথি স্বর্ণা রানী রায় (২৪) বলেন, ‘বট-পাকুড়ের বিয়ের কথা এত দিন শুনেছি। আজ নিজের চোখে দেখলাম। মানুষের বিয়ের মতোই আয়োজন করা হয়েছে। বিয়েবাড়ির আয়োজনে শরিক হতে পেরে খুবই ভালো লাগছে।’
বট-পাকুড়ের বিয়ের বিষয়ে লোকসংস্কৃতি-গবেষক ও দিনাজপুরের বীরগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মাসুদুল হক বলেন, এটি মূলত লোকাচার। ভারতবর্ষের রীতি অনুযায়ী সম্প্রীতি, মৈত্রী চুক্তি, সময় স্মারককে চিহ্নিত করতেই এই আয়োজন করা হতো। এ অঞ্চলের মানুষ বিশেষ মনোবাসনা পূর্ণ করতেও বট-পাকুড়ের বিয়ে দেন। তবে বৈষ্ণবীয় রীতি অনুযায়ী, রাধাকৃষ্ণ অভেদ আত্মা। দুটি সত্তাকে একত্র করতে মধ্যযুগে বৈষ্ণবীয় রীতিতেও বট-পাকুড়ের বিয়ের প্রচলন ছিল। তিনি বলেন, মেক্সিকোতে গাছের সঙ্গে মানুষের বিয়ে দেওয়ার রীতি আছে। সেখানে বৃহৎ বৃক্ষকে ধরা হয় শক্তির আকর। মূলত প্রকৃতিবাদীরা প্রকৃতিপ্রেম থেকে এই আয়োজন করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং