1. sumondomar2021@gmail.com : sumon islam : sumon islam
  2. info@www.newsibangla.com : news :
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:১৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
তজুমদ্দিনে “মহান শহীদ দিবস” ও “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” পালিত হয়েছে হাতীবান্ধায় মাদকসহ জলঢাকা পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আটক নড়াইলে যথাযোগ্য মর্যাদায় শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত।এসপি মেহেদী হাসান পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রভাত ফেরী অনুষ্ঠিত ও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন চাঁপাই প্রেসক্লাবের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন লালমোহনে “মহান শহীদ দিবস” ও “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” পালিত হয়েছে সমাপনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হলো জসিম পল্লী মেলা ৬ নং মাড়েয়া বামন হাট ইউনিয়নে ভাষা শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধাজ্ঞাপন দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে বিজিবি কর্তৃক ৮ কোটি টাকার মাদকদ্রব্য ধ্বংস ভাঙ্গায়  ৩ দিন ধরে এক স্কুল ছাত্র নিখোঁজ

শিকলে বাঁধা শিশু রাকিবের জীবন

আরিফুল ইসলাম জয়
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ১০ বার পড়া হয়েছে

আরিফুল ইসলাম জয়, ভূরুঙ্গামারী, কুড়িগ্রাম:

পাঁচ বছর ধরে শিকলে বেঁধে রাখা হচ্ছে শিশু রাকিব হোসেনকে। কুড়িগ্রাম জেলার ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাইকেরছড়া ইউনিয়নের গছিডাঙ্গা গ্রামে
শিকলে বাঁধা রয়েছে ১১ বছর বয়সী মানসিক ভারসাম্যহীন শিশু রাকিব হোসেন।
দূর্ঘটনা বা হারিয়ে যাওয়ার ভয়ে ছেলেকে শিকল দিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে প্রতিদিন কাজে যান দিনমজুর বাবা রুহুল আমিন (৪৫)। আর এভাভেই পাঁচ বছর ধরে শিকলবন্দী রাকিব।

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাইকেরছড়া ইউনিয়নের গছিডাঙ্গা গ্রামে শিশু রাকিবের বাড়ি। অন্যের জমিতে চাষাবাদ ও দিনমজুরি করে কোনোমতে সংসার চালায় রুহুল আমিন। অর্থাভাবে চিকিৎসা করাতে না পারায় দিন দিন ছেলের অবস্থা খারাপ হচ্ছে, এমনটাই বললেন রুহুল আমিন ।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় শিশু রাকিবের পায়ে লোহার শিকল ও তালা লাগিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা। প্রচণ্ড শীতে কাঁপতে কাঁপতে সে শিকলে বাঁধা গাছটির চারদিকে ঘুরছে। হঠাৎ পাশ দিয়ে কোনো পথচারীকে যেতে দেখলেই ইশারায় কাছে ডেকে পায়ের শিকল খুলে দিতে বলে।

রাকিবের বাবা রুহুল আমিন বলেন, অভাবের সংসার তাঁর। এক দিন কাজ না করলে পেটে ভাত জোটে না। প্রতিদিন সকালে ছেলেকে শিকল দিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে কাজে যান। বিকেলে কাজ থেকে ফিরে ছেলেকে ঘরে নিয়ে আসেন। উন্নত চিকিৎসা পেলে ছেলেটা হয়তো ভালো হবে। কিন্তু সেই টাকা তাঁর নেই।

পরিবার ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রায় পাঁচ বছর আগে বাড়ির সামনে রাস্তা পার হওয়ার সময় ভটভটির ধাক্কায় রাকিব হোসেন গুরুতর আহত হয়। আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। চিকিৎসায় রাকিব প্রাণে বেঁচে গেলেও সে বাক্‌প্রতিবন্ধী ও মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে।

পরিবারে সৎমা থাকলেও রাকিবের দেখাশুনা করেন বাবা রুহুল আমিন। রাকিবের দাদি রহিমা বেগম বলেন, দুর্ঘটনার পর রাকিব হঠাৎ হঠাৎ হারিয়ে যেত, অন্যের ক্ষতি করত। পরে এলাকাবাসীর অনুরোধে তাকে শেকলে বেঁধে রাখা হয়।
শিশু রাকিবের বাবা রহুল আমিন বলেন সমাজের বিত্তবানরা যদি শিশুটির চিকিৎসায় এগিয়ে আসেন, ছেলেটাকে উন্নত চিকিৎসা করাতে পারি তাহলে হয়তো আমার ছেলে আবার সাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে।

পাইকেরছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক সরকার বলেন, শিশুটির নামে একটি প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড করে দেওয়া হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং