1. info@www.newsibangla.com : news :
চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে কালীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি - News i Bangla
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০৯:৪৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আতাউর রহমান মিল্টন বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত ডোমার উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত সরকার ফারহানা আখতার সুমি চট্টগ্রামে র‌্যাবের পাতা ফাঁদে আঁটকে গেল ৪ চাঁদাবাজ নাজাত যেন মেলে নালিতাবাড়ীতে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের গণসংযোগ এক বছরের মাথায় চিলাহাটি এক্সপ্রেস কোচ লক্কড়ঝক্কড় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক/কর্মচারী যোগদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত গাজীপুরের শ্রীপুরে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চিলাহাটিতে ভোক্তা অধিকারের অভিযান, ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা শেকড়ের সন্ধানে শীর্ষক সুরেন্দ্রনাথ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে সপ্তম মিলনমেলা

চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে কালীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ২৩ বার পড়া হয়েছে

মো:সিরাজুল ইসলাম পলাশ,লালমনিরহাট : চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে গত ১৫ জানুয়ারি থেকে লালমনিরহাটের ৫ উপজেলার নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (নেসকো) পিচরেট মিটার রিডার ও বিল বিতরণকারীরা কর্মবিরতি পালন করছেন। এসময় চাকরি স্থায়ীকরণ না হলে আত্মহত্যার হুমকি দেন তারা।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) সকাল লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার নেসকো কার্যালয়ের সামনে ৫ উপজেলা থেকে আসা পিচরেট মিটার রিডার ও বিল বিতরণকারীরা এই কর্মবিরতিতে অংশ নেন।

এতে করে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা বাড়ির ভেতরে থাকা মিটার না দেখেই নেয়া হচ্ছে ইউনিট রিডিং। আর গ্রাহকদের কাছ থেকে মনগড়া বাড়তি বিদ্যুৎ বিল আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন গ্রাহকরা। এমন অবস্থায় দ্রুত বিল বিতরণকারীদের দাবি মেনে নেয়ার অনুরোধ করেন ভুক্তভোগী গ্রাহকরা। গ্রাহকরা ভুতুড়ে বিলে নিয়ে নেসকো কার্যালয়ে এসে অভিযোগ করেন।

পিচরেট মিটার রিডার ও বিল বিতরণকারী ইউসুফ আলী (৭০) বলেন, প্রায় ২০ বছরের বেশি থেকে আমি প্রতিটা বাড়িতে গিয়ে বিল বিতরণ করে আসছি। নেসকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এর আগে চাকরি স্থায়ীকরণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, কিন্তু বয়স শেষ হয়ে গেলেও চাকরি স্থায়ী হয়নি। চাকরি স্থায়ী না হলে আমি পরিবার নিয়ে কোথায় যাবো। আমার আত্মহত্যা ছাড়া কোনো পথ থাকবে না।

পিচরেট মিটার রিডার ও বিল বিতরণকারীরা জানান, দীর্ঘ ২০ বছর ধরে অস্থায়ী (পিচরেট) ভিত্তিতে মিটার পাঠক ও বিল বিতরণকারী হিসেবে তারা কর্মরত আছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদের চাকরি স্থায়ীকরণ হয়নি। ফলে রাজশাহী ও রংপুর এই দুই বিভাগের ৬শ’ জনের ঊর্ধ্বে পিচরেট কর্মচারী তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে বর্তমানে চরম হতাশার মধ্য দিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তাই অবিলম্বে তারা তাদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি জানান। না হলে আগামীতে বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন বক্তারা।

জেলা নেসকোর পিচরেট ঐক্য পরিষদের সভাপতি কালী শঙ্কর রায় বলেন, প্রি-প্রেইড সিস্টেম চালু করা হয়েছে। এই সিস্টেম পুরোপুরি চালু হলে আমরা চাকরিচ্যুত হবো। তাই আমাদের চাকরি স্থায়ীকরণ করতে হবে। নেসকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এর আগে চাকরি স্থায়ীকরণের প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু আজও সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না হওয়ায় অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন করা হচ্ছে। আমরা এমডির এই প্রতিশ্রুতির দ্রুত বাস্তবায়ন চাই। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

এসময় বক্তব্য রাখেন, লালমনিরহাট জেলা নেসকোর পিচরেট ঐক্য পরিষদের সভাপতি কালী শঙ্কর রায়, নেসকো অফিসের সভাপতি বাবু জগন্নাথ রায়, পাটগ্রাম নেসকো অফিসের পিচরেট ঐক্য পরিষদের সভাপতি ইসমাইল হোসেন বাবু, কালীগঞ্জ নেসকো অফিসের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান ঢালীসহ ৫ উপজেলার পিচরেট মিটার রিডার ও বিল বিতরণকারীরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং